0 Item | Tk.0
2
Moringa

আপনি কী জানেন সজনে গাছের বৈজ্ঞানিক নাম মরিঙ্গা ওলেইফে, যা ৩০০ ধরনের রোগের সমাধানে একাই একশো? অসম্ভব ঔষধি গুণে ভরপুর থাকার কারণে মরিঙ্গাকে মিরাকেল ট্রি বলা হয়ে থাকে। পুষ্টি বিজ্ঞানীরা মরিঙ্গাকে পুষ্টির ডিনামাইট তথা ন্যাচারাল মাল্টি-ভিটামিন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। এই গাছের পাতাকে বলা হয় ‘সুপার ফুড অব নিউট্রিশন’। এটি প্রায় ৩০০ ধরণের রোগের ক্ষেত্রে কার্যকর।

মরিঙ্গা পাতার গুঁড়োর রয়েছে বিশেষ গুণাগুণ। জেনে অবাক হবেন যে, মরিঙ্গার পাতায় রয়েছে কমলার চেয়ে ৭ গুণ বেশি ভিটামিন সি এবং কলার থেকে ১৫ গুণ বেশি পটাসিয়াম রয়েছে, দুধের চেয়েও বেশি ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম ও জিংক রয়েছে। এই মরিঙ্গা পাতাকে শাক হিসেবে খাওয়া হয়। এতে শরীরের শ্রমজনিত ক্লান্তি এবং শরীরের ব্যথা থাকলে তা সহজেই দূর হয়। 

মরিঙ্গা পাতার এরকম অসাধারণ ভেজষ গুণের কারনে এটি বিদেশি যে কোনও সুপারফুডকে সহজেই টেক্কা দিতে পারে। সজনে গাছের সব কটা অংশে নানা খাদ্যগুণ থাকলেও পাতার প্রায় নব্বই শতাংশ নানা খাদ্যগুণে ভরপুর। মনে করা হয় যে এই পাতার আরও অনেক গুণাগুণ এখনও অজানাই রয়ে গেছে। মানুষের শরীরে আটটি অতিপ্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড দরকার। মরিঙ্গাতে এই আটটি অ্যামিনো অ্যাসিড রয়েছে। প্রকৃতিতে খুব কম সংখ্যক গাছেই এই সকল অ্যাসিড একত্রে থাকে।  মরিঙ্গা কাজ করার শক্তি বাড়ায়, নানা রোগ ঠিক করতে ও রোগ প্রতিহত করতে সাহায্য করে সেই সাথে মন এবং মেজাজ ভালো রাখে। আসুন সংক্ষেপে জেনে নেই তিনশত রোগের সমাধান মরিঙ্গার কিছু উপকারিতা …. 

☘️ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

 মরিঙ্গা শরীরের প্রতিরোধক ব্যবস্থা শক্তিশালী করে। এটি শরীর থেকে বিষাক্ত দ্রব্য, ভারি ধাতু অপসারণ করে দেয়। ক্যান্সার রোগীদের শরীরে রেডিয়েশন ও কেমোথেরাপি নিতে সহায়তা করে।

☘️ শরীরের ব্যথা উপশমে

শরীরের কোনো স্থানে ব্যথা হলে বা ফুলে গেলে মরিঙ্গার শিকড়ের প্রলেপ দিলে ব্যথা ও ফোলা সেরে যায়। 

☘️ কান ব্যথা উপশম করে

মরিঙ্গার শিকড়ের রস কানের ব্যথার সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ফল দেয়।

☘️ মাথা ব্যথা দূর করে

 মরিঙ্গার আঠা দুধের সাথে খেলে মাথা ব্যথা সেরে যায়। আঠা কপালে মালিশ করলে মাথা ব্যথা সেরে যায়।

☘️ ফোঁড়া উপশম করে

 মরিঙ্গার আঠার প্রলেপ দিলে ফোঁড়া সেরে যায়।

☘️ হাঁপানি ও মূত্রপাথরি উপশম করে

 মরিঙ্গা ফুলের রস হাঁপানি রোগে বিশেষ উপকারী। মরিঙ্গা ফুলের রস দুধের সাথে মিশিয়ে খেলে মূত্রপাথরি দূর হয়।

☘️ গ্যাস হওয়া থেকে রক্ষা করে

 বাচ্চাদের পেটে জমা গ্যাস দূর করতে মরিঙ্গা একটি ভাল সমাধান। পাতার রসের সাথে লবণ মিশিয়ে খেতে দিলে গ্যাস দূর হয়ে যায়। 

☘️ কুকুরের কামড়ে কার্যকরী

 মরিঙ্গার পাতা পেষণ করে তাতে রসুন, হলুদ, লবণ ও গোলমরিচ মিশিয়ে সেবন করলে কুকুরের বিষ ধ্বংস হয়।

☘️ জ্বর ও সর্দি উপশম করে

মরিঙ্গার পাতাকে শাকের মত রান্না করে খেলে যন্ত্রণাধায়ক জ্বর এবং সর্দি দূর হয়। 

☘️ বহুমূত্র রোগে কার্যকরী

মরিঙ্গা পাতার রস বহুমূত্র রোগে বিশেষ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে

☘️ কোষ্ঠকাঠিন্য ও দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে

মরিঙ্গার ফুল কোষ্ঠকাঠিন্য রোগ দূর করে এবং দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে।

☘️ হজম সমস্যা সমাধান করে

মরিঙ্গা ফুল দুধের সাথে রান্না করে নিয়মিত খেলে হজমশক্তি ও কামশক্তির বৃদ্ধি ঘটে।

☘️ গেঁটে-বাত সমস্যা সমাধান করে

মরিঙ্গার ফল নিয়মিত রান্না করে খেলে গেঁটে বাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

☘️ ক্রিমিনাশক ও টিটেনাস রোগে বিশেষ কার্যকরী

মরিঙ্গার কচি ফল ক্রিমিনাশক, লিভার ও প্লীহাদোষ নিবারক, প্যারালাইসিস ও টিটেনাস রোগে হিতকর।

☘️ অবশতা, সায়াটিকা দূর করে

মরিঙ্গার বীজের তেল মালিশ করলে বিভিন্ন বাত বেদনা, অবসতা, সায়াটিকা, বোধহীনতা ও চর্মরোগ দূর হয়।

☘️ হৃদরোগ সমস্যা সমাধানে

হৃদরোগ সমস্যায় মরিঙ্গা খুবই কার্যকর। পাতার রস হৃদরোগ চিকিৎসায় এবং রক্তের প্রবাহ বৃদ্ধিতে ব্যবহার হয়। 

☘️ পোকা-মাকড়ের কামড়ে বিশেষ কার্যকরী

পোকার কামড়ে এন্টিসেপ্টিক হিসেবে মরিঙ্গার রস ব্যবহার করা হয়।

☘️ শরীরে ক্ষতস্থান সারায়

ক্ষতস্থান সারার জন্য মরিঙ্গা পাতার পেস্ট উপকারী।

☘️ হাঁড়ের সমস্যার সমাধান করে

শরীরের কোন অঙ্গ মচকালে বা থেতলালে আদা ও মরিঙ্গার ছাল বাটা প্রলেপ বানিয়ে দিলে ব্যাথা উপশম হয়।

☘️ ইন্টেস্টাইন ও প্রোস্টেট সংক্রমণ রোধ করে

মরিঙ্গা বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণের রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

☘️ চুলপড়া বন্ধ করে

 চুলপড়া রোগের চিকিৎসায় ও মরিঙ্গা কার্যকর ভূমিকা রাখে।

☘️ কৃমি সমস্যার সমাধান করে

কৃমিনাশক হিসাবেও মরিঙ্গার ব্যবহার অতীব গুরুত্বপূর্ণ। মূল ও ছালের রস নিয়মিত ৩/৪ দিন খেলে শরীর কৃমি মুক্ত হয়ে যায়।

☘️ রক্ত সংবহণতন্ত্রের ক্ষমতা বাড়ায়

মরিঙ্গা রক্ত সংবহণতন্ত্রের ক্ষমতাও বাড়ায়। মরিঙ্গার কচি পাতার রস নিয়মিত ব্যবধানে খেলে রক্তের উচ্চচাপ ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে য়ায়। মায়ানমারের চিকিৎসকদের মতে, মরিঙ্গার পাকা পাতার টাটকা রস দুবেলা আহারের ঠিক আগে এক বা দুই চামচ করে খেলে এক সপ্তাহের মধ্যে রক্তের উচ্চচাপ কমে যাবে। তবে যাদের ডায়াবেটিস আছে তারা এটি ব্যবহার করবেননা।   

☘️ বসন্ত রোগ প্রতিরোধ করে

নিয়মিত মরিঙ্গার ডাঁটা ও ফুল ভাজী বা তরকারী করে খেলে জল ও গুটি এ দু’ধরনের বসন্তে আক্রান্ত হবার কোন সম্ভাবনা থাকেনা।

☘️  ব্ল্যাড প্রেসার নিয়ন্ত্রনে রাখে

খাবার লবন অর্থাৎ ‘সোডিয়াম ক্লোরাইড’ ব্ল্যাড প্রেসার রোগীদের জন্য খুবই ক্ষতিকর। অপরদিকে, ‘পটাশিয়াম লবন’ কোন ক্ষতি করেনা। মরিঙ্গার ডাঁটাতে সোডিয়াম ক্লোরাইড নেই বললেই চলে। কাজেই এতে ব্ল্যাড প্রেসার নিয়ন্ত্রিত থাকে।

☘️ রক্তস্বল্পতা দূর করে

শরীরে রক্তের পরিমান কমে গেলে পানি দিয়ে মরিঙ্গার ডাঁটা সেদ্ধ করে তার ক্বাথ এবং ডাঁটা চিবিয়ে খেলে রক্তল্পতা দূর হয়। তবে বেশ কিছুদিন নিয়মিত খাওয়া দরকার।

নিয়মিত মরিঙ্গা ব্যবহারে আমরা আমাদের দেহকে রাখতে পারি সুস্থ ,সবল ও সতেজ। মরিঙ্গা মানবদেহের জন্য সবদিক থেকেই খুবই উপকারী। এটি একাই আমাদের অসংখ্যা রোগ থেকে মুক্তি দিতে সহায়ক।

2 Comments

  1. Mohammad Nuruddin August 30, 2022 Reply

    কিভাবে পেতে পারি?

  2. Shakil Ahmed September 17, 2022 Reply

    এই ঔষধ কি ভাবে পেতে পারি।।একটু বলবেন প্লিজ। আর এর মূল্য কত?

Leave a Comment

Your email address will not be published.

0

TOP

X